ডায়াবেটিস

ডায়াবেটিস

ডায়াবেটিস কনেটেন্টটিতে ডায়াবেটিস কী, ডায়াবেটিসের লক্ষণ, ডায়াবেটিসের প্রকারভেদ, পরীক্ষা-নিরীক্ষা, চিকিৎসা, পথ্য ও বাড়তি সতর্কতা, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ, ডায়াবেটিসের জরুরি অবস্থা সর্ম্পকে বর্ণনা করা হয়েছে।
ডায়াবেটিস

­

ডায়াবেটিস

শক্তির জন্য দেহে শর্করা,আমিষ ও চর্বি জাতীয় খাদ্যের প্রয়োজন। ডায়াবেটিস হলে শর্করা ও অন্যান্য খাবার সঠিকভাবে শরীরের কাজে আসে না। ফলে শরীরে নানা ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। কিছু নিয়মকানুন মেনে চললে ডায়াবেটিস অনেকখানি নিয়ন্ত্রণে রেখে সু্‌স্থ্যভাবে জীবন যাপন করা যায়।

ডায়াবেটিস কি

ডায়াবেটিস একটি বিপাক জনিত রোগ। আমাদের শরীরে ইনসুলিন নামের হরমোনের সম্পূর্ণ বা আপেক্ষিক ঘাটতির কারনে বিপাকজনিত গোলযোগ সৃষ্টি হয়ে রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ বৃদ্ধি পায় এবং এক সময় তা প্রস্রাবের সংগে বেরিয়ে আসে। এই সামগ্রিক অবস্থাকে ডায়াবেটিস বলে। ডায়াবেটিস ছোঁয়াচে বা সংক্রামক কোন রোগ নয়।

ডায়াবেটিস হয়েছে কিভাবে বুঝবেন

ডায়াবেটিস হলে সাধারণত: যেসব লক্ষন ও উপসর্গ গুলো দেখা দেয়:

ঘন ঘন প্রস্রাব হওয়া
খুব বেশী পিপাসা লাগা
বেশী ক্ষুধা পাওয়া
যথেষ্ঠ খাওয়া সত্ত্বেও ওজন কমে যাওয়া
ক্লান্তি ও দুর্বলতা বোধ করা
ক্ষত শুকাতে দেরী হওয়া
খোশ-পাঁচড়া,ফোঁড়া প্রভৃতি চর্মরোগ দেখা দেওয়া
চোখে কম দেখা

ডায়াবেটিসের প্রকারভেদ

ডায়াবেটিসের মূলত চারটি ধরন রয়েছে।

ক) ধরন ১ (টাইপ.১)- এই ধরনের রোগীদের শরীরে ইনসুলিন একেবারেই তৈরী হয় না। সাধারণতঃ ৩০ বৎসরের কম বয়সে (গড় বয়স ১০-২০ বৎসর) এ ধরনের ডায়াবেটিস দেখা যায়। সু্‌স্থ্য থাকার জন্য এ ধরনের রোগীকে ইনসুলিন নিতে হয়। এই ধরনের রোগীরা সাধারনত কৃষকায় হয়ে থাকেন।

খ) ধরন ২ (টাইপ.২)-এই শ্রেণীর রোগীর বয়স অধিকাংশ ক্ষেত্রে ত্রিশ বৎসরের উপরে হয়ে থাকে। তবে ত্রিশ বৎসরের নিচে এই ধরনের রোগীর সংখ্যা দিন দিন বেড়ে চলেছে। এই ধরনের রোগীদের শরীরে ইনসুলিন তৈরী হয় তবে তা প্রয়োজনের তুলনায় যথেষ্ঠ নয় অথবা শরীরে ইনসুলিনের কার্যক্ষমতা কমে যায়। অনেক সময় এই দুই ধরনের কারণ একই সাথে দেখা দিতে পারে। এই ধরনের রোগীরা ইনসুলিন নির্ভরশীল নন। অনেক ক্ষেত্রে খাদ্যাভাসের পরিবর্তন এবং নিয়িমিত ব্যয়ামের সাহায্যে এদের চিকিৎসা করা সম্ভব। এই ধরনের রোগীরা বেশীরভাগ ক্ষেত্রে স্থূলকায় হয়ে থাকেন।

গ) অন্যান্য নির্দিষ্ট কারণ ভিত্তিক শ্রেণী-

জেনেটিক কারনে ইনসুলিন তৈরী কম হওয়া
জেনেটিক কারনে ইনসুলিনের কার্যক্ষমতা কমে যাওয়া
অগ্ন্যাশয়ের বিভিন্ন রোগ
অন্যান্য হরমোনের আধিক্য
ঔষধ ও রাসায়নিক দ্রব্যের সংস্পর্শ
সংক্রামক ব্যধি
অন্যান্য কোন প্রতিরোধ ক্ষমতার জটিলতা

এই ধরনের রোগী ক্ষীণকায় ও অপুষ্টির শিকার হয়ে থাকে এবং ইনসুলিন ছাড়া অনেক দিন বেঁচে থাকতে পারে। এই ধরনের রোগীর বয়স ৩০ বৎসরের নিচে হয়ে থাকে।

ঘ)গর্ভকালীন ডায়াবেটিস-অনেক সময় গর্ভবতী অবস্থায় প্রসূতিদের ডায়াবেটিস ধরা পড়ে। আবার প্রসবের পর ডায়াবেটিস থাকে না। এই প্রকারের জটিলতাকে গর্ভকালীন ডায়াবেটিস বলা হয়। গর্ভবতী মহিলাদের ডায়াবেটিস হলে গর্ভবতী,ভ্রুণ,প্রসূতি ও সদ্য-প্রসূত শিশু সকলের জন্যই বিপদজনক হতে পারে। বিপদ এড়ানোর জন্য গর্ভকালীন অবস্থায় ডায়াবেটিসের প্রয়োজনে ইনসুলিনের মাধ্যমে বিশেষভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখা দরকার। এই ধরনের রোগীদের প্রসব হাসপাতালে করা প্রয়োজন।

চিকিৎসার জন্য যোগাযোগ

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স
জেলা সদর হাসপাতাল
মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল
বারডেম
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়
বেসরকারী হাসপাতাল

কি কি পরীক্ষা নিরীক্ষার প্রয়োজন হতে পারে

খালি পেটে রক্ত পরীক্ষা
ভরা পেটে রক্ত পরীক্ষা
প্রস্রাব পরীক্ষা
কোলেস্টরল,থাইরয়েডের কার্যাবলী,যকৃত এবং কিডনী পরীক্ষা

ডায়াবেটিসের চিকিৎসা

ডায়াবেটিস সম্পূর্ণ সারানো বা নিরাময় করা যায় না। তবে এ রোগ সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব এবং এই বিষয়ে ডাক্তার রোগীকে সাহায্য করতে পারেন।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে করণীয়

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে চারটি নিয়ম মানতে হয়ঃ

ক) নিয়ন্ত্রিত খাদ্য গ্রহণ

খ) সাধ্যমত কায়িত পরিশ্রম ও ব্যায়াম

গ) ঔষধ

ঘ) শিক্ষা

প্রতিটি পর্যায়ে শৃঙ্খলা মেনে চলতে হবে।

ক) নিয়ন্ত্রিত খাদ্য গ্রহণ -ডায়াবেটিস হলে খাদ্যের একটি নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে চলতে হয়। খাদ্য ও পুষ্টির চাহিদা ডায়াবেটিস হওয়ার আগে যে রকম থাকে পরেও একই থাকে। পুষ্টির চাহিদার কোন তারতম্য হয় না। খাদ্যের নিয়ম মেনে চলার প্রধান উদ্দেশ্য থাকে:ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা, স্বাস্থ্য ভাল রাখা।

খ) ব্যায়াম-রোগ নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে ব্যায়াম বা শরীর চর্চার ভূমিকা খুব গুরুত্বপূর্ণ। ব্যায়াম করলে শরীর সু্‌স্থ থাকে,ইনসুলিনের কার্যকারিতা ও নি:সরনের পরিমাণ বেড়ে যায়। প্রতিদিন অন্তত: ৪৫ মিনিট হাঁটলে শরীর যথেষ্ঠ সু্‌স্থ থাকবে। শারীরিক অসুবিধা থাকলে সাধ্যমত কায়িক পরিশ্রম করতে হবে।

গ) ঔষধ-সকল ডায়াবেটিক রোগীকেই খাদ্য,ব্যায়াম ও শৃঙ্খলা মেনে চলতে হবে। অনেক ক্ষেত্রে,বিশেষ করে বয়স্ক রোগীদের ক্ষেত্রে,এই দুইটি যথাযথভাবে পালন করতে পারলে রোগ নিয়ন্ত্রণে আসে। কিন্তু টাইপ-১ ডায়াবেটিস রোগীদের ক্ষেত্রে ইনসুলিন ইনজেকশনের দরকার হয়। টাইপ-২ ডায়বেটিস রোগীর ক্ষেত্রে চিকিৎসক শর্করা কমাবার জন্য খাবার বড়ি দিতে পারেন।

ঘ) শিক্ষা- ডায়াবেটিস আজীবনের রোগ। সঠিক ব্যবস্থা নিলে এই রোগকে সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। ব্যবস্থাগুলি রোগীকেই নিজ দায়িত্বে মেনে চলতে হবে এবং রোগীর পরিবারের নিকট সদস্যদের সহযোগিতা এ ব্যাপারে অনেক সাহায্য করতে পারে। তাই এ রোগের সুচিকিৎসার জন্য ডায়াবেটিস সর্ম্পকে রোগীর যেমন শিক্ষা প্রয়োজন, তেমনি রোগীর নিকট আত্মীয়দেরও এই রোগ সর্ম্পকে কিছু জ্ঞান থাকা দরকার।

পথ্য ও বাড়তি সতর্কতা

আঁশবহুল খাবার (ডাল,শাক,সবজি,টক ফল ইত্যাদি) বেশী খেতে হবে
উদ্ভিদ তেল,অর্থাৎ সয়াবিন তেল,সরিষার তেল ইত্যাদি এবং সব ধরনের মাছ খাওয়া অভ্যাস করতে হবে
ওজন স্বাভাবিক রাখতে হবে।
চিনি-মিষ্টি জাতীয় খাবার খাওয়া বাদ দিতে হবে
চাল,আটা দিয়ে তৈরী খাবার,মিষ্টি ফল ইত্যাদি কিছুটা হিসেব করে খেতে হবে।
ঘি,মাখন,চর্বি,ডালডা,মাংস ইত্যাদি কম খেতে হবে।
অন্যান্য রোগে আক্রান্ত হলে অর্থাৎ অসু্‌স্থ অবস্থায় বিশেষ খাদ্য-ব্যবস্থা জেনে নিতে হবে।

যা মনে রাখতে হবে

নিয়মিত ও পরিমাণ মতো সুষম খাবার খেতে হবে
নিয়মিত ও পরিমাণমতো ব্যায়াম বা দৈহিত পরিশ্রম করতে হবে
ডাক্তারের পরামর্শ ও ব্যবস্থাপত্র সুষ্ঠভাবে মেনে চলতে হবে
শরীর পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে
পায়ের বিশেষ যত্ন নিতে হবে
নিয়মিত প্রস্রাব পরীক্ষা করতে হবে এবং ফলাফল প্রস্রাব পরীক্ষার বইতে লিখে রাখতে হবে
চিনি, মিষ্টি, গুড়, মধুযুক্ত খাবার সম্পূর্ণ বাদ দিতে হবে
ধূমপান করা যাবে না
শারীরিক কোন অসুবিধা দেখা দিলে দেরী না করে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে
ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোন কারণেই ডায়াবেটিস রোগের চিকিৎসা বন্ধ রাখা যাবে না
তাৎক্ষনিক রক্তে শর্করা পরিমাপক যন্ত্র দিয়ে নিজে নিজেই রক্তের শর্করা পরিমাপ করে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারলে সবচেয়ে ভাল
রক্তে শর্করা পরিমাপক বিশেষ কাঠি দিয়েও তাৎক্ষনিকভাবে রক্তের শর্করা পরিমাপ করা যায়

ডায়াবেটিস রোগের জরুরী অবস্থা

ক) রক্তে শকর্রার স্বল্পতা(হাইপোগ্লাইসেমিয়া)-রক্তে শর্করার পরিমাণ কমানোর জন্য ট্যাবলেট বা ইনসুলিন দেয়া হয়। ট্যাবলেট খাওয়ার বা ইনসুলিন নেয়ার ফলে যদি শর্করার পরিমাণ খুব কমে তাহলে শরীরে প্রতিক্রিয়া হতে পারে।

প্রতিক্রিয়ার লক্ষণগুলি নিম্নরূপ:
অসু্‌স্থ বোধ করা
খুব বেশী খিদে পাওয়া
বুক ধড়ফড় করা
বেশী ঘাম হওয়া
শরীর কাঁপতে থাকা
শরীরের ভারসাম্য হারিয়ে ফেলা
অস্বাভাবিক আচরণ করা
অজ্ঞান হয়ে
কেন এবং কখন এই সব লক্ষণ দেখা দেয়
ঔষধের (ট্যাবলেট বা ইনসুলিন) পরিমাণ প্রয়োজনের তুলনায় বেশী হলে
ইনসুলিন ও সিরিঞ্জ একই মাপের না হলে
বরাদ্দের চেয়ে খাবার খুব কম খেলে বা খেতে ভুলে গেলে
ইনসুলিন নেয়ার পর খুব দেরী করে খাবার খেলে

ছবি: আক্রান্ত ব্যক্তির জ্ঞান থাকলে এবং সে গিলতে পারলে তাকে সাথে সাথে চিনি খেতে,বা চিনি মেশানো শরবত,পানীয় বা খাবার দেয়া।

তথ্য সূত্র: দূর্যোগে প্রাথমিক চিকিৎসা, পৃষ্ঠা:৫৯,বাংলাদেশ ডিজাষ্টার প্রিপেয়ার্ডনেস সেন্টার (বি,ডি,পি,সি),ঢাকা,অক্টোবর ১৯৯৫।

হঠাৎ বেশী ব্যায়াম বা দৈহিক পরিশ্রম করলে

বমি বা পাতলা পায়খানার জন্য শর্করা অন্ত্রনালী হতে শোষণ না হলে
রক্তে শর্করার অভাব হলে কি করা উচিৎ

প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়া মাত্র রোগীকে চা-চামচের ৪ থেকে ৮ চামচ গ্লুকোজ বা চিনি এক গ্লাস পানিতে গুলে খাইয়ে দিতে হবে বা । রোগী অজ্ঞান হয়ে গেলে মুখে কিছু খাওয়ার চেষ্টা না করে গ্লুকোজ ইনজেকশন দিতে হবে বা তাকে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে।

খ)ডায়াবেটিক কোমা-ইনসুলিন নির্ভর রোগীদের সাধারণত ডায়াবেটিক কোমা হয়ে থাকে। অপর্যাপ্ত ইনসুলিন নিলে বা ইনসুলিন নির্ভরশীল রোগী ইনসুলিন একেবারে না নিলে রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে গিয়ে বিপর্যয় দেখা দেয়। ইনসুলিনের অভাবে রক্তের শর্করা শরীরের কাজে লাগতে পারে না, তখন তাপ ও শক্তির জন্য দেহের সঞ্চিত চর্বি ব্যবহার হতে থাকে। কিন্তু পর্যাপ্ত ইনসুলিনের অভাবে এই চর্বি অতিরিক্ত ভাঙ্গার ফলে কিছু ক্ষতিকর পদার্থ ও অম্ল রক্তে বেড়ে যায়, ফলে এসিটোন নামক একটি কিটোন বডির পরিমাণ বেশী মাত্রায় বেড়ে গিয়ে অম্লতার জন্য রোগী অজ্ঞান হয়ে যায়। এই অবস্থাকে ডায়াবেটিক কোমা বলে।

ডায়াবেটিক কোমার লক্ষণ
প্রস্রাবে শর্করার পরিমাণ খুব বেশী বেড়ে যাওয়া
খুব বেশী পিপাসা লাগা
ঘন ঘন প্রস্রাব হওয়া
অত্যন্ত বেশী ক্ষুধা লাগা
খুব অসু্‌স্থ বোধ হওয়া
বমি ভাব হওয়া
দুর্বলতা বোধ হওয়া
ঝিমানো
শ্বাস কষ্ট হওয়া
দ্রুত শ্বাস নেওয়া
মাথা ধরা
চোখে ঝাপসা দেখা
নিস্তেজ বোধ হওয়া
শ্বাসে এসিটোনের গন্ধ বের হওয়া
এই লক্ষণ গুলি দেখা দিলে
শরীরে পানি স্বল্পতা কমানোর জন্য অতিরিক্ত লবণ মিশ্রিত পানি খেতে হবে।
ইনসুলিনের পরিমাণ বাড়াতে হবে
প্রস্রাবে কিটোন বডি আছে কিনা তা পরীক্ষা করতে হবে
অবিলম্বে ডাক্তারের সহায়তা নিতে হবে

সচরাচর জিজ্ঞাসা

প্রশ্ন.১.কাদের ডায়াবেটিস হতে পারে?

উত্তর.যে কেউ যে কোন বয়সে যে কোন সময় ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হতে পারেন। তবে তিন শ্রেণীর লোকের ডায়াবেটিস হওয়ার সম্ভাবনা বেশী থাকে:

যাদের বংশে, যেমন-বাবা-মা বা রক্ত সর্ম্পকিত নিকট আত্মীয়ের ডায়াবেটিস আছে
যাদের ওজন অনেক বেশী
যারা ব্যায়াম বা শারীরিক পরিশ্রমের কোন কাজ করেন না
বহুদিন ধরে কর্টিনোল জাতীয় ঔষধ ব্যবহার করলে

প্রশ্ন.২. কি কি অবস্থায় ডায়াবেটিস প্রকাশ পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে?

উত্তর.

শারীরিক স্থূলতা
গর্ভাবস্থা
ক্ষত
আঘাত
অস্ত্রোপাচার
মানসিক বিপর্যয়
রক্তনালীর অসু্‌স্থতার কারণে হঠাৎ করে মস্তিষ্কের রোগ

প্রশ্ন.৩. অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস থেকে কি ধরনের বিপদ হতে পারে?

উত্তর.

পক্ষাঘাত
স্নায়ুতন্ত্রের জটিলতা
হুদরোগ
পায়ে পচনশীল ক্ষত
চক্ষুরোগ
মুত্রাশয়ের রোগ, প্রস্রাবে আমিষ বের হওয়া, পরবর্তীতে কিডনীর কার্যক্ষমতা লোপ পাওয়া
পাতলা পায়খানা
যক্ষা
মাড়ির প্রদাহ
চুলকানি
ফোঁড়া
পাঁচড়া
রোগের কারণে যৌন ক্ষমতা কমে যাওয়া
মহিলাদের ক্ষেত্রে বেশী ওজনের শিশু, মৃত শিশুর জন্ম, অকালে সন্তান প্রসব, জন্মের পরই শিশুর মৃত্যু এবং নানা ধরনের জন্ম ত্রটি দেখা দিতে পারে

প্রশ্ন.৪. কিভাবে বুঝবেন আপনার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আছে?

উত্তর.ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আছে কিনা বোঝার উপায় হচ্ছে রক্তের শর্করার (গ্লুকোজ) মাত্রা পরীক্ষা করে দেখা। যদি খালি পেটে রক্তের শর্করার (গ্লুকোজ) মাত্রা ৬.১ মিলি মোল/লিটার থাকে এবং খাওয়ার পর ৮.০ মিলি মোল/লিটার পর্যন্ত হয়, তবে ডায়াবেটিস খুব ভাল নিয়ন্ত্রণে আছে বলে মনে করতে হবে। খাবারের পর রক্তে শর্করার (গ্লুকোজ) মাত্রা ১০.০ মিলি মোল/লিটার পর্যন্ত হলে ডায়াবেটিস মোটামুটি নিয়ন্ত্রণে আছে বলে মনে করতে হবে। রক্তের শর্করার (গ্লুকোজ) মাত্রা এর চেয়ে বেশী হওয়ার অর্থ হলো ডায়াবেটিন নিয়ন্ত্রণে নাই।

প্রশ্ন.৫. ডায়াবেটিস কি সারানো যায়?

উত্তর.ডায়াবেটিস রোগ সারে না । এ রোগ সারা জীবনের রোগ। তবে আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থা গ্রহন করলে এ রোগকে খুব ভালভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। ডায়াবেটিস রোগ নিয়ন্ত্রণে থাকলে প্রায় স্বাভাবিক কর্মঠ জীবন যাপন করা যায়।

তথ্যসূত্র

ডায়াবেটিক গাইড বই, বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতি।